পার্লামেন্টকে ক্ষমতায় রেখে নির্বাচন কখনই সুষ্ঠু হতে পারে না বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হারুন অর রশিদ

জয়নাল আবেদীন হিরো, সৈয়দপুর (নীলফামারী) : বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হারুন-অর-রশিদ বলেছেন, আরো যদি লড়াই সংগ্রামে প্রাণ দিতে হয় তবু এই সরকারের অধিনে কোনো নির্বাচনে আমরা যাবো না।
রবিবার বিকালে নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বিএনপির রাজনৈতিক জেলা শাখার কর্মী সভায় মকবুল হোসেন টেকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত কর্মীসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, বিএনপি গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনার জন্য লড়াই সংগ্রাম অব্যাহত রেখেছে। আন্দোলন সংগ্রাম করতে গিয়ে সৈয়দপুরেও দলের বহু তরতাজা প্রাণ ঝড়ে গেছে। আরো যদি লড়াই সংগ্রামে প্রাণ দিতে হয় তবু এই সরকারের অধিনে কোনো নির্বাচনে আমরা যাবো না।
শেখ হাসিনাকে অনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী দাবি করে বলেন, সহায়ক সরকার অথবা নির্বাচন কালীন নিরপেক্ষ সরকারের ব্যবস্থা করা না হলে শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রেখে, পার্লামেন্টকে ক্ষমতায় রেখে নির্বাচন কখনই সুষ্ঠু হতে পারে না। সৈয়দপুর শহরের পাটোয়ারীস্থ্য মকবুল হোসেন ট্যাকনিক্যাল এন্ড বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজ চত্বরে জেলা বিএনপির সভাপতি এ্যাডঃ আব্দুর গফুর সরকারের সভাপতিত্বে কর্মী সমাবেশে বিশেষ অতিথি ছিলেন, বিলকিস ইসলাম সাবেক এমপি, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সাংঠনিক সম্পাদক (রংপুর বিভাগ) সামছুজ্জামান জামান। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, পৌর প্যানেল মেয়র-১ জিয়াউল হক জিয়া, প্যানেল মেয়র-২ শাহীন আকতার, বিএনপি নেত্রী বিলকিস বানু, কাজী একরামুল হক, আনিছুল চৌধুরী, কবুতর, ডাঃ সাবের আলী, ডাঃ শরীফুল ইসলাম, আব্দুল কাদের সরকার, আনোয়ারুল ইসলাম, ডাঃ জহুরুল হক, বছির উদ্দিন, মোজাম্মেল হক প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন জেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেন সরকার। কর্মী সভায় সৈয়দপুর পৌর বিএনপি ও পাঁচ ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। কর্মী সমাবেশে বক্তব্যেরা নীলফামারী-৪ আসনের সংসদ নির্বাচনে অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেনকে যোগ্য প্রার্থী হিসাবে মনোনয়নের জন্য দাবী জানান কেন্দ্রীয় কমিটিকে। তাকে ছাড়া অন্য কাউকে প্রার্থী দিলে যেকোন মুল্যেই প্রতিহত করা হবে এবং সৈয়দপুরকে অচল করে দেওয়া হবে। অধ্যক্ষ আমজাদ হোসেন বলেন আমি জিয়াউর রহমানকে শ্রদ্ধা করেই আজ বিএনপির রাজনীতি করছি। বিএনপি আমার প্রাণের দল। তাই দেশের আগামী জাতীয় নির্বাচন নিরপেক্ষতার দাবি নিয়ে মাঠে নেমেছি। ইনশাআল্লাহ আমরা জয়ী হবোই। বিএনপির জয় হবেই। পাশাপাশি নিরপেক্ষ নির্বাচন হলেই বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশা করেন এবং ওই নির্বাচনে নীলফামারী ৪ আসনে প্রার্থী হয়ে জয় লাভ করবেন তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Print Friendly, PDF & Email

Comments are closed.