বদরগঞ্জের কৃষকরা প্রচন্ড শীতকে উপেক্ষা করে বোরো চাষে ব্যস্ত


ফারুক হোসেন নয়ন,বদরগঞ্জ(রংপুর)প্রতিনিধিঃ
প্রচন্ড শীতকে উপেক্ষা করে বোরো চাষে ব্যস্ত সময় পার করছেন বদরগঞ্জের কৃষকরা।
বিস্তৃীর্ন অঞ্চল জুড়ে যেন চলছে বোরো চাষের মহোৎসব। গ্রাম বাংলার চিরাচরিত এ দৃশ্য বিস্তৃীর্ন মাঠ জুড়ে যোগ করেছে নতুন মাত্রা। কিছুদিন পরেই কাদা মাটির বিস্তীর্ন ভূমি ভরে যাবে সবুজের সমারোহে। তৈরি হবে এক অভূতপূর্ব চিত্র।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়; এবারে বদরগঞ্জ উপজেলায় ১৭হাজার ৩শত ৪০হেক্টর জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা হাতে নেয়া হয়েছে। যেসব এলাকায় সেচ সুবিধা রয়েছে সেসব এলাকায় বোরো চারা রোপন করেছেন কৃষকরা। কৃষি অফিসের দেয়া তথ্য মতে; এরই মধ্যে লক্ষ্যমাত্রার শতকরা ১৫ ভাগ জমিতে বোরো চারা রোপনের কাজ শেষ করেছেন কৃষকরা।

উপজেলা উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা কনক চন্দ্র রায় জানান; চলতি বোরো মৌসুমে কৃষকরা সাধারণতঃ সুপার হাইব্রিড(এসএলএইস),শংকর-৩,পারটেক্স,বালিয়া-১,বালিয়া-২,তেজগোল্ড,তেজ, টিয়া নবীন,দোয়েল শক্তি-২,সম্পদ,সাথি।

ব্রি-ধান-২৮,ব্রি ধান ২৯,ব্রি ধান-৫০,ব্রিধান ৬৩,ব্রিধান ৬৪,বিআর-১৫,বিআর-১৬ এছাড়াও কিছু মিনিকেট ও জিরাশাইল ধানের চারা রোপন করছেন।

গত শনিবার(২০জানুয়ারি)সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে; কৃষকরা মাঠে মাঠে ব্যস্ত সময় পার করছেন। কেউ বোরো চারা রোপন করছেন,কেউ জমিতে চাষ দিচ্ছেন,কেউবা জমিতে জৈব সার প্রয়োগ করছেন। আবার যেসব জমিতে সেচনালা নষ্ট হয়েছে সে সব জমির সেচনালা ঠিক করছেন।

কথা হয় উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের কিসমত ঘাটাবিল এলাকার কৃষক মফিজুল ইসলামের সাথে,তিনি জানান; আমার কয়েক বিঘা জমিতে ইতোমধ্যেই বোরো চারা রোপন করেছি। বর্তমানে এই জমির সেচনালা নষ্ট হওয়ায় তা ঠিক করছি, সেচনালা ঠিক হওয়ার সাথে সাথেই জমিতে চারা রোপন করা হবে। একই কথা বলেন ওই এলাকার কৃষক মামুন মিয়া ও মাজেদুল হক।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাহবুবর রহমান জানান; বোরো চাষের লক্ষ্য মাত্রা অর্জনে যে পরিমাণ সার প্রয়োজন তা পুরোপুরি মজুদ রয়েছে। লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে যে পরিমাণ চারা প্রয়োজন তার চেয়ে অনেক বেশি চারা কৃষকরা উৎপাদন করেছেন। আশা করছি চলতি বছর এ উপজেলায় বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রার ছাড়িয়ে যাবে।#

Print Friendly, PDF & Email

Comments are closed.