মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্পে বিস্ফোরক সরবরাহ না থাকায় খনিতে পাথর উত্তোলন বন্ধ

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনিতে এমজিএমসিএল কর্তৃক বিস্ফোরক সরবরাহ সংকটের কারনে দেশের একমাত্র পাথর খনিতে পাথর উত্তোলন কার্যক্রম সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে গেছে।

মধ্যপাড়া পাথর খনির উদ্ভুত পরিস্থিতিতে পাথর খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী এস,এম নুরুল আওরঙ্গজেব এর ব্যবস্থাপনার বিষয় নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।খনির একটি সুত্রে জানা গেছে, উক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী এস,এম নুরুল আওরঙ্গজেব এর কর্ম অদক্ষতা তাঁর বিগত কর্মস্থলে প্রমানিত ছিল।

জানা গেছে, চুক্তি অনুয়ায়ী পাথর উৎপাদন কাজে অতি প্রয়োজনীয় বিস্ফোরক দ্রব্য (অ্যমোনিয়াম নাইট্রেট) সরবরাহ করবে মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানী লিমিটেড (এমজিএমসিএল ) কর্তৃপক্ষ।

কিন্তু খনি কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসিকে চাহিদা মোতাবেক নির্দিষ্ট সময়ে বিস্ফোরক দ্রব্য সরবরাহ না করায় এবং উক্ত প্রয়োজনীয় মালামাল বহু পূর্বেই শেষ হয়ে যাওয়ার ফলে খনির ভু-গর্ভে উত্তোলন যোগ্য পর্যাপ্ত পাথর না থাকার কারনে আজ ২রা জুন থেকে উৎপাদন সংশ্লিষ্ট সকল অপারেশনাল কাজ বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান জিটিসি। তবে জরুরী ও খনির ভু-গর্ভে রক্ষনাবেক্ষন কাজ চালু থাকবে।

একটি সুত্র মারফত জানা গেছে, গত বছরের ডিসেম্বর মাসে এক পত্র মারফতে এমজিএমসিএলকে অবহিত করা হয় যে, এপ্রিল মাসের মধ্যে বিস্ফোরক অ্যমোনিয়াম নাইট্রেট সরবরাহ না করা হলে উৎপাদন কার্যক্রম হুমকির মুখে পড়বে। কিন্তু গত এপ্রিল মাসে ও সম্পুর্ণ মে মাসেও খনি কর্তৃপক্ষ বিস্ফোরক সরবরাহের ব্যবস্থা না করায় তাদের অনুরোধে জিটিসি স্বল্প সংখ্যক বিস্ফোরক দিয়ে উৎপাদন কার্যক্রম সচল রেখেছিল।

কিন্তু এদতসত্বেও খনি কর্তৃপক্ষ মে মাসে কোন প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না নেওয়ার ফলে বিস্ফোরক সংকটে জিটিসি গত সপ্তাহ খানেক যাবৎ বিস্ফোরক বিহীন অপারেশনাল কার্যক্রম পরিচালনা করে শেষে উৎপাদন সহ উৎপাদন সংশ্লিষ্ট সকল অপারেশনাল কার্যক্রম বন্ধ করতে বাধ্য করা হলো।

খনির একটি সুত্র জানায়, মধ্যপাড়া পাথর খনির ঠিকাদারী প্রতিষ্টান জার্মানীয়া-ট্রেষ্ট কনসোর্টিয়াম (জিটিসি) যখন এই খনির ইতিহাসে পাথর উৎপাদনের রেকর্ড তৈরী করেছে এবং প্রতিমাসে ১ লক্ষ ২০ হাজার মেট্রিক টন পাথর উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে বিগত মাসগুলোতে ধারাবাহিকভাবে মাসিক ১ লক্ষ টনের অধিক পাথর উৎপাদন করে যাচ্ছে, একই সঙ্গে খনির নতুন স্টোপ নির্মান সহ উন্নয়ন কাজ চালিয়ে যাচ্ছে তখন মাইন অপারেশনাল কাজে বিভিন্ন ধরনের প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হতে হচ্ছে জিটিসিকে। তারপরেও মধ্যপাড়া পাথর খনির উন্নয়ন সহযোগি হিসেবে জিটিসি’র কার্যক্রম খনিটিকে সরকারের লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করবে বলে সুত্রটি আশা প্রকাশ করেন। #

Print Friendly, PDF & Email

Comments are closed.