কাঁচা মরিচের বড়ই ঝাঁজ বাহে

ফারুক হোসেন নয়ন, বদরগঞ্জ(রংপুর) প্রতিনিধিঃ
আঃ মাজেদ(৪৫)। পেশা কৃষিকাজ করা। বাড়ি বদরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউপির
ফাটকের ডাঙ্গা গ্রামে। তিনি বদরগঞ্জ হাটে এসেছেন বাড়ির নিত্য প্রয়োজনীয়
সওদা করতে। একে একে সকল খরচ করার পর কাঁচা মরিচ কিনতে এসে তার চোখ যেন
কাঁচা মরিচের ঝাঁজে লাল হয়ে গেল। উপায়ন্তর না দেখে তিনি শুধু ১
পোয়া(২৫০গ্রাম) মরিচ কিনে বাড়ির উদেশ্যে রওনা দিলেন।
গতকাল সোমবার(৩০জুলাই)দুপুরে সংবাদ সংগ্রহের উদেশ্যে কাঁচাবাজার ঘুরে
দেখার এক পর্যায়ে কৃষক আঃ মাজেদের সাথে দেখা হলে তিনি এই প্রতিবেদককে
জানান,কাঁচা মরিচোত বড়ই ঝাঁজ বাহে।
হামার বাড়িত সদস্য সংখ্যা ১৪ জন। প্রতি হাটবার(সোম ও বৃহঃস্পতি)মুই বাড়ির
খরচাপাতি করো। আজ কাঁচা মরিচের দাম দেখি মোর মাথা খারাপ হয়া গেইছে। বাধ্য
হয়া মুই ১ পোয়া মরিচ কিননু, তাও ২৫ টাকা দিয়া। প্রতিহাটে মোর বাড়িত মরিচ
নাগে দেড় কেজি করি।
এ দিকে, বাজারে কাঁচা মরিচের দাম বেড়েই চলেছে। দাম বেশি হবার কারনে
ভোক্তরা পড়েছেন বিপাকে। প্রতিদিনের রান্নায় অত্যাবশ্যকীয় উপাদান এই কাঁচা
মরিচ। ফলে না কিনেও উপায় নেই ভোক্তাদের। দাম চড়া হবার কারনে প্রয়োজনের
তুলনায় কম কিনছেন ক্রেতারা। পক্ষান্তরে দাম বেশি হবার কারনে মরিচ চাষিরা
রয়েছেন ফুরফুরে মেজাজে।
কথা হয় বদরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউপির ঝাকুয়াপাড়া গ্রামের মরিচ চাষি
বদন আলি(৭৫)সাথে তিনি জানান; আমি ২ বিঘা জমিতে মরিচ চাষ করেছি। দাম ভাল
হওয়ায় আমি বেশ খুশি। কারন মরিচ চাষ করেই আমার ২ সন্তানের লেখাপড়ার খরচ সহ
সংসারের যাবতীয় ব্যয় বহন করতে হয়।
তিনি আরও জানান; পাইকাড়ি বাজারে প্রতি কেজি মরিচ ৮৫ হতে ৯০ টাকা দরে
বিক্রি করছি। খুচরা বাজারে মরিচ ১শত হতে ১১০টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
একই গ্রামের মরিচ চাষি এমারুল হক(৬০)জানান; বদরগঞ্জের ৮০ভাগ মাটি পলি ও
উর্বর দো-আঁশ হওয়ায় মরিচ জাতীয় ফসল এখানে বেশ ভাল হয়। আমি ৩বিঘা জমিতে
মরিচ চাষ করেছি। বাজার মুল্য ভাল হওয়ায় আমি বেশ খুশি।
কথা হয় কাঁচামাল ব্যবসায়ি শাহিন মিয়ার সাথে,তিনি জানান; গত কয়েকদিন ধরে
কাঁচা মরিচের দাম কেজি প্রতি ১শত হতে ১১০টাকায় বিক্রি করছি। বদরগঞ্জ
উপজেলা উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা কনক চন্দ্র রায় জানান; কয়েক দিনের
গুড়িগুড়ি বৃষ্টিতে মরিচের ফুল পড়ে যাওয়ায় এবং উৎপাদন ঘাটতি হওয়ায় প্রভাব
পড়েছে মরিচের বাজারে।
বদরগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার মাহবুবর রহমান জানান,কয়েকদিন ধরে মরিচের
বাজার বেশ চড়া। আবহাওয়া স্বাভাবিক হলে উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে তখন আর এই চড়া
দাম থাকবে না। #

Print Friendly, PDF & Email

Comments are closed.