মেয়াদ বাড়ছে পদ্মা সেতু প্রকল্পের

ডেস্ক নিউজ : অবশেষে মেয়াদ বাড়ছে পদ্মা সেতু প্রকল্পের। নির্ধারিত সময় আগামী ডিসেম্বর মাসের মধ্যে পুরো কাজ শেষ করা সম্ভব হবে না, তাই প্রাথমিকভাবে মেয়াদ এক বছর বাড়ানো হতে পারে। এর আগে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে বৈঠকের পাশাপাশি সেতুর দেশি বিদেশি বিশেষজ্ঞরা প্রতিটি খুঁটিনাটি বিবেচনা করে পিছিয়ে পড়া কাজ পুষিয়ে নেয়ার উপায় খুঁজে বের করবেন।সময়ের সাথে বাড়ছে সেতুর দৈর্ঘ্য। ৫টি স্প্যানে নদীর জাজিরা প্রান্তে দৃশ্যমান এখন পৌনে এক কিলোমিটার সেতু।

প্রায় ৪ বছর আগে কাজ শুরুর পর থেকেই শুরু নানা জটিলতা। ২২টি পিলারে মাটির তলদেশে সমস্যা দেখা দেয়। নতুন নকশার জন্য এ অংশে কাজ বন্ধ রাখতে হয় এক বছরেরও বেশি সময়। কাজের জন্য বিশ্বের সবচেয়ে ভালো প্রতিষ্ঠানের হ্যামার নিয়ে আসা হলেও হঠাৎ বিকল হয়ে দীর্ঘদিন পড়ে থাকে তা। এর সঙ্গে বর্ষায় পদ্মার প্রবল স্রোত, নদী ভাঙ্গনে ইয়ার্ডের এক অংশ হারিয়ে যাওয়াতো ছিলোই। পিছিয়ে পড়ে তাই মূল সেতুর কাজ। বাস্তবতা মেনে নতুন করে বাড়াতে হবে সময়, সেটা কতদিন? সিদ্ধান্ত সামনের মাসে।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘৪-৫টি স্প্যান বসেছে। এটা আসলে পদ্মার গতি-প্রকৃতির ওপর নির্ভর করে এবং এটা অনিশ্চিত। এজন্য আমি বলতে পারছি না কবে নাগাদ নির্মাণ কাজ শেষ হবে। তারপরও আমরা দেখছি। আমরা কমেন্ট করবো সেপ্টেমবরের দিকে।’

কাজ কেন পিছিয়ে গেছে, সেটা কিভাবে পুষিয়ে নেয়া যাবে, নতুন মেয়াদ নির্ধারণে গুরুত্ব পাবে এ বিষয়ও।

পদ্মা বহুমুখী সেতুর প্রকল্প পরিচালক মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ম্যানপাওয়ার, উপকরণ সবকিছু দিয়ে হিসেব করে বলতে হবে, আমরা কবে কাজ সম্পন্ন করতে পারবো। ঠিকাদারদের সঙ্গে নিয়ে আমরা বসছি। আশা করছি, দুই-একমাসের মধ্যে আমরা জানাতে পারবো।’

ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানি এর মধ্যে কাজ শেষ করার জন্য আরো ৩ বছর সময় চেয়েছে। তবে, সবশেষ তথ্য বলছে, এখন পর্যন্ত মূল সেতুর ৯১ শতাংশ কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও হয়েছে ৭১ ভাগ। নদী শাসনের ৭৯ শতাংশ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও হয়েছে ৪১ ভাগ। তবে মেয়াদ অনুযায়ী যথাসময়েই শতভাগ শেষ হয়েছে সংযোগ সড়ক, সার্ভিস এরিয়া এবং পুনর্বাসনের কাজ। #

Print Friendly, PDF & Email

Comments are closed.