চিলমারীর ভাসমান ডিপোতে তিন মাস পর তেল সরবরাহ


চিলমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ চিলমারীতে ভাসমান তেল ডিপো যমুনা ও মেঘনা তিন মাস ধরে তেলশূন্য থাকার পর মেঘনা তেল ডিপোতে তেল এলেও অজ্ঞাত কারণে যমুনা তেল ডিপোটি তেলশূন্য রয়ে গেছে। তেল আসার পর রোববার প্রথম দিনে নিমিষেই বিক্রি হয়ে যায় ১ লাখ ৬ হাজার লিটার তেল। জানা গেছে, ১৯৮৯ সালে চিলমারীতে ভাসমান তেল ডিপো পদ্মা, মেঘনা ও যমুনা তিনটি কোম্পানি স্থাপিত হয়ে কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, জামালপুর ও লালমনিরহাট জেলায় তেল সরবরাহ করে আসছিল। কয়েক বছরের মাথায় পদ্মা তেল কোম্পানিটি বার্জ মেরামতের অজুহাত দেখিয়ে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়। এরপর থেকেই মেঘনা ও যমুনা অয়েল কোম্পানি দুটি এ অঞ্চলে দীর্ঘদিন ধরে তেল সরবরাহ করে আসছে। মেঘনা কোম্পানি তাদের বার্জটি সুবিধামতো জায়গায় নিতে না পারায় ও তেল ধারণক্ষমতা কম থাকায় কোম্পানিটির তেল বিক্রি কমে যায়। এতে যমুনা কোম্পানির তেল বিক্রি বেড়ে যায়। অজানা কারণে তেল ডিপো দুটি তিন মাস ধরে তেলশূন্য হয়ে পড়ে রয়েছে। মেঘনা তেল ডিপোর ডিপো সুপার মো. আবু সাইদ বলেন, প্রান্তিক কৃষকদের কৃষি কার্যক্রম ঠিক রাখতে চিলমারী ডিপো নির্ভর তেলের বাজারটি টিকিয়ে রাখা উচিত মর্মে মেঘনা তেল কোম্পানি সীমাবদ্ধতার মধ্য থেকেও তেল সরবরাহ অব্যাহত রেখেছে। শনিবার তেল এলে রোববারই ১ লাখ ৬ হাজার লিটার বিক্রি হয়ে যায়। #