আটশ বছর আগের মাটির নিচে মিলল  ‘সোনার সুড়ঙ্গে’র খোঁজ


নিউজ ডেস্ক : মাটির নিচে লুকিয়ে রাখা আটশ বছরের পুরনো সোনার সুড়ঙ্গের খোঁজ পেলেন বিজ্ঞানীরা। এছাড়া যোদ্ধাদের গোপন সদর দপ্তরেরও খোঁজ। কেবল খোঁড়াখুঁড়ি করে সেই সম্পত্তি তুলে নিয়ে আসার অপেক্ষা। জানা গেছে, উন্নত প্রযুক্তির লেসার প্রযুক্তি ব্যবহার করে ওই সুড়ঙ্গের খোঁজ পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। ন্যাশনাল জিয়োগ্রাফিক চ্যানেলের বিজ্ঞানী লিন এবং তার দল ওই সুড়ঙ্গের খোঁজ পেয়েছেন। লিন বলেন, একাদশ শতকে ধর্মযুদ্ধের সময় ইসরায়েলের শহর একরির নিচে খ্রিস্টান যোদ্ধারা সুড়ঙ্গ তৈরি করেছিলেন। ধর্মযুদ্ধ ছিল ইসরায়েলে খ্রিস্টধর্মের সূচনা করার। ধর্মযুদ্ধের সময় ইসরায়েলের ওই শহরই ছিল যোদ্ধাদের সদর দপ্তর।

সদর দপ্তর যেন সহজে খুঁজে না পাওয়া যায়, সেজন্য একরি শহরের মাটির অনেকটা নিচে ওই সুড়ঙ্গ তৈরি করা হয়। গোপন সুড়ঙ্গ দিয়ে সদর দপ্তরে পৌঁছতেন যোদ্ধারা। এই সুড়ঙ্গ দিয়েই তারা যুদ্ধের প্রয়োজনীয় সামগ্রী এবং সঙ্গে প্রচুর সোনা নিয়ে যেতেন। তবে অনেক ইতিহাসবিদ মনে করেন, এই গোপন সুড়ঙ্গ সোনার মতো মূল্যবান সম্পদ নিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি সেনাদের লুকিয়ে থাকা এবং বিপদে পড়লে পালিয়ে যাওয়ার রাস্তা হিসেবেও ব্যবহার করা হত। এতদিন সেই সুড়ঙ্গ এবং সদর দপ্তরের কথা জানা থাকলেও, তার প্রকৃত অবস্থান জানা ছিল না। আটশ বছরের পুরনো সেই সুড়ঙ্গের খোঁজ পেলেন বিজ্ঞানী লিন। তবে এই সুড়ঙ্গ মাটির ঠিক কতটা নিচে রয়েছে এবং তার বিস্তৃতি কতটা জায়গা জুড়ে রয়েছে সেটা জানার চেষ্টা এখনো চালিয়ে যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।

ইসরায়েলের একরি শহরে মাটির উপরে থাকা খ্রিস্টান ধর্মযোদ্ধাদের সদর দফতরের ধ্বংসস্তূপ এখনো রয়েছে। বিজ্ঞানীদের ধারণা, আরো ভালো করে খোঁড়াখুড়ি করলে ধর্মযোদ্ধাদের লুকিয়ে রাখা অনেক সোনা উদ্ধার করা যাবে মাটির নিচের ওই সদর দপ্তর এবং সুড়ঙ্গ থেকে। #