ছেলের চাকরি না হলে রাষ্ট্রীয় সম্মাননা চাই না : মুক্তিযোদ্ধা সলিমউদ্দিন

পঞ্চগড় প্রতিনিধি : দিনাজপুরের পর এবার পঞ্চগড়ের আটোয়ারীর এক মুক্তিযোদ্ধা বলেছেন, ছেলের চাকরি না হলে তিনি মৃত্যুর পর রাষ্ট্রীয় সম্মাননা নেবেন না। নিজের এই সিদ্ধান্ত জানিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর চিঠিও দিয়েছেন কাটালী মীরপাড়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা সলিমউদ্দিন।

চিঠিতে সলিমউদ্দিন লিখেছেন, ‘আটোয়ারী উপজেলার প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে দপ্তরি-কাম নৈশ প্রহরী পদে ১৭ জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। আমার সন্তান দপ্তরি-কাম নৈশ প্রহরী পদে দরখাস্ত করে এবং মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। কিন্তু দুঃখের বিষয়, একজন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে তাঁর চাকরি না হওয়ায় আমি অত্যন্ত হতাশ হয়ে পড়ি। আমি ন্যায়বিচারের স্বার্থে আদালতের আশ্রয় নিই। মামলাটি প্রত্যাহার করে নিতে মো. সাদেকুল ইসলাম এবং তার লোকজন আমাকে ও আমার সন্তানকে হুমকি দিয়ে আসছে।’

চিঠিতে সলিমউদ্দিন আরো লেখেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ডাকে আমি ১৯৭১ সালে সম্মুখযুদ্ধে অংশগ্রহণ করি। কিন্তু আজ আমার সন্তান যোগ্য প্রার্থী হওয়ার পরও চাকরি না পাওয়ায় এবং বিভিন্ন মহল থেকে হুমকি আসায় আমি হতবাক। তাই আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি, আমার জীবদ্দশায় আমার সন্তানের চাকরি না হলে এবং উক্ত নিয়োগের অনিয়ম ও দুর্নীতির বিচার না হলে আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে মৃত্যুর পর কোনো রাষ্ট্রীয় সম্মাননা নেব না।’

আটোয়ারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত দায়িত্ব) সৈয়দ মাহমুদ হাসান বলেন, ‘আমি এখনো এ রকম কোনো অভিযোগপত্র পাইনি। পেলে খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।’

জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ও জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, ‘একজন মুক্তিযোদ্ধা ছেলের চাকরি হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন। আমি খোঁজখবর নিয়ে বিষয়টি দেখব।’ #