বাংলাদেশ রেলওয়ের ৬৭টি ট্রেনের সময়সূচী পরিবর্তন আনা হচ্ছে


অনলাইন ডেস্ক :
৬৭টি আন্তঃনগর ট্রেনের সময়সূচির পরিবর্তন করে রেলের ৫২ তম ওয়ার্কিং টাইম টেবিল (ডব্লিউটিটি) চূড়ান্ত করার কাজ করছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। এসব গুরুত্বপূর্ণেএবং দ্রুতগতির ট্রেনগুলো যাতে বড় স্টেশনে আধুনিক সিগনালিং ব্যবস্থায় ক্রসিং সম্পন্ন করতে পারে এবং রেলের সিডিউল বিপর্যয় ঠেকানো যায় সেজন্য নতুন এ টাইম টেবিল তৈরির নির্দেশনা দিয়েছেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। আর সে মোতাবেক কাজ করে চলেছে রেলের অপারেশন বিভাগ। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে এটি কার্যকর হতে পারে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, নতুন টাইম টেবিলে পূর্বাঞ্চলে ৪৮টি ট্রেনের মধ্যে ২৮টির এবং পশ্চিমাঞ্চলের ৫৬টি ট্রেনের মধ্যে ৩৯টি ট্রেনের সময়সূচিতে পরিবর্তন আনা হচ্ছে। যাত্রার সময় পরিবর্তনের পাশাপাশি গন্তব্যে পৌঁছার সময়ও বাড়ছে অধিকাংশ ট্রেনের। এছাড়াও নতুন টাইম টেবিলে সিংহভাগ ট্রেনের রানিং টাইম বাড়ানো হচ্ছে।

এ বিষয়ে রেলওয়ে ডেপুটি ডাইরেক্টার (অপারেশন্স) খায়রুল কবীর বলেন, কিছু ট্রেনের সময়সূচি পরিবর্তন করার চিন্তা ভাবনা করছে রেলওয়ে। এটি এখনো প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। এখনো এটি সারা দেশ থেকে চুড়ান্ত হয়ে আসেনি। টাইম টেবিল রিসিডিউল একটি রুটিন কাজ। এ নিয়ে একাধিক বৈঠক হয়েছে। তবে টাইম টেবিল কার্যকরের তারিখ এখনো চূড়ান্ত হয়নি বলে জানান তিনি।

কার্যকরের অপেক্ষায় থাকা টাইম টেবিলের নথি পর্যালোচনায় দেখা গেছে, ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটের গুরুত্বপূর্ণ ও দ্রতগামী সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেনের গন্তব্যে পৌঁছার সময় ১০ মিনিট বাড়ছে । বর্তমানে মন্দবাগ স্টেশনে সুবর্ণ ও সোনার বাংলার ক্রসিং হওয়ার কথা থাকলেও নতুন টাইম টেবিলে ক্রসিং হবে আখাউড়া থেকে লাকসাম সেকশনের যেকোনো স্টেশনে। এ সেকশনটি সিঙ্গেল লাইন হওয়ার পাশাপাশি ডাবল লাইনে সম্প্রসারণ প্রকল্পের কাজ চলমান থাকায় কিছু ট্রেনের সময় সীমা বাড়বে। বর্তমানে চালু না থাকলেও ঢাকা থেকে নোয়াখালী পর্যন্ত এক জোড়া আন্তঃনগর ট্রেনের সময়সূচি যোগ করা হয়েছে নতুন টাইম টেবিলে। প্রস্তাবিত ট্রেনটির প্রতিদিন সকাল ৮টায় ঢাকা থেকে নোয়াখালীর উদ্দেশে ছেড়ে যাবে । তবে সময়সূচি পরিবর্তন সাপেক্ষে অনেক ট্রেনের রানিং সময় কমিয়েও এনেছে রেলওয়ে।

নতুন টাইম টেবিল অনুযায়ী, সুবর্ণ এক্সপ্রেস বেলা ৩টার পরিবর্তে বিকাল সাড়ে ৪টায় ঢাকা থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে এবং চট্টগ্রাম থেকে সকাল ৭টার পরিবর্তে ৮টায় ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসবে, এছাড়া ঢাকা-সিলেট রুটের পারাবত সকাল ৬টা ৪০ মিনিটের পরিবর্তে ৬টা ২০ মিনিটে, পারাবত সিলেট থেকে বেলা ৩টার পরিবর্তে ৩টা ৪৫ মিনিটে, জয়ন্তিকা (সিলেট-ঢাকা) সকাল ৮টা ৪০-এর পরিবর্তে বেলা ১১টা ১৫ মিনিটে, মহানগর এক্সপ্রেস (ঢাকা-চট্টগ্রাম) রাত ৯টার পরিবর্তে ৯টা ২০ মিনিটে, উপবন (ঢাকা-সিলেট) রাত ৯টা ৫০-এর পরিবর্তে রাত ৮টা ৩০ মিনিটে, উপবন (সিলেট-ঢাকা) রাত ১০টার পরিবর্তে ১১টা ৩০ মিনিটে, কালনী (সিলেট-ঢাকা) সকাল ৭টার পরিবর্তে ৬টা ১৫ মিনিটে, হাওর (ঢাকা-মোহনগঞ্জ) রাত ১১টা ৫০-এর পরিবর্তে ১০টা ১৫ মিনিটে, হাওর (মোহনগঞ্জ-ঢাকা) সকাল ৮টা ৩০ মিনিটের পরিবর্তে ৮টায়, মোহনগঞ্জ এক্সপ্রেস (মোহনগঞ্জ-ঢাকা) রাত ৯টা ৩০ মিনিটের পরিবর্তে ৯টায় গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে।

অন্যদিকে পশ্চিমাঞ্চল রেল রুটের বেনাপোল এক্সপ্রেস বর্তমানে ঢাকা থেকে রাত ১২টা ৪০ মিনিটে ছেড়ে গেলেও নতুন টাইম টেবিলে ছাড়বে ১১টা ৫০ মিনিটে। নতুন চালু হওয়া পঞ্চগড় এক্সপ্রেস রাত ১২টা ১০ মিনিটের পরিবর্তে ১০টা ৪৫ মিনিটে ছেড়ে যাবে। এছাড়াও একতা এক্সপ্রেসের গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়ার সময় ১৫ মিনিট বাড়িয়ে সকাল ৭টা ১৫ মিনিট করা হয়েছে। খুলনাগামী সুন্দরবন রাত ৮টা ৩০-এর পরিবর্তে ১০টা ১৫ মিনিট, খুলনা থেকে সুন্দরবন সকাল ৬টা ২০-এর পরিবর্তে ৮টা ১৫ মিনিটে ছেড়ে আসবে। লালমনি রাত ১০টা ১০-এর পরিবর্তে ৯টা ৪৫ মিনিট, সিল্কসিটি বেলা ২টা ৪০-এর পরিবর্তে ২টা ৪৫ মিনিট, দ্রুতযান সকাল ৯টা ১৫-এর পরিবর্তে ৮টা ১০ মিনিট, পদ্মা রাত ৯টা ১০ মিনিটের পরিবর্তে ৯টা, চিত্রা সকাল ৮টা ৪০-এর পরিবর্তে ৯টা, নীলসাগর সকাল ৮টার পরিবর্তে ৬টা ৪০, রংপুর এক্সপ্রেস সকাল ৯টার পরিবর্তে ৯টা ১৫ মিনিট, ফিরতি রংপুর এক্সপ্রেস রাত ৮টার পরিবর্তে ৮টা ২০ মিনিটে গন্তব্যের উদ্দেশে ছেড়ে যাবে।

এছাড়া আরো বেশ কিছু ট্রেনের ঢাকা থেকে ছেড়ে যাওয়া ও ফিরে আসার সময়সীমা পাল্টানোর প্রস্তাব করা হয়েছে এ নতুন টাইম টেবিলে। #