উত্তরাঞ্চলের সেরা ১৫ খামারীকে প্রাণ ডেইরীর সংবর্ধনা


সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি : গ্রামীণ পর্যায়ে প্রকৃত খামার ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে নিরাপদ দুধ উৎপাদনে উত্তরাঞ্চলের অভিজ্ঞ খামারীদের উৎসাহ দিতে নিজস্ব চুক্তি ভিত্তিক গোয়ালাদের পুরস্কৃত করেছে প্রাণ ডেইরী লিমিটেড। সঠিক ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে খামার পরিচালনা, দীর্ঘ সময় ধরে প্রাণ ডেইরীকে দুধ প্রদান ও প্রাণ ডেইরীর সহযোগীতায় ক্ষুদ্র খামার থেকে বৃহৎ খামার গড়ে তোলাসহ পাঁচটি বিষয়ের উপর ভিত্তি করে প্রাণ ডেইরীর চুক্তি ভিত্তিক খামারীদের মধ্যে উত্তরবঙ্গের সিরাজগঞ্জ, পাবনা, নাটোর, রংপুর জেলার ১৫ জনকে বাছাই করা হয়।

বুধবার বিকেলে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের গঙ্গাপ্রসাদে প্রাণ ডেইরী কমপ্লেক্সে এসব অভিজ্ঞ খামারীদের অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার তুলে দেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু ও প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান খান চৌধুরী।

সেরা খামারীর পুরস্কার প্রাপ্তরা হলো মো. মাহতাব আলী, ইসলাম আলী, মো. আব্দুর রশিদ, মো. রেজাউল করিম, মো. রুবেল হোসেন, মো. শামসুল, মো. আকবর আলী, মো. মনিরুল ইসলাম আলাল, শ্রী মনোরঞ্জন রায়, মোছা. মিনা আক্তার, মো. হান্নান প্রামানিক, শ্রী মধুসূদন ঘোষ, মো. টুটুল প্রামানিক, মো. উকিল হোসেন, মো. মতিন সরকার।

অনুষ্ঠানে খামারীদের উদ্দেশ্যে প্রধান অতিথি প্রাণি মৎস্য ও সম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু বলেন, মানুষ ও পশুকে সুস্থ রাখতে অনার্থক এন্টিবায়োটিক জাতীয় খাবার খাওয়াবেন না। আবার হঠাৎ গাভী অসুস্থ হলে আমাদের প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তারা রয়েছেন তাদের বলে যথাযথ চিকিৎসা নিবেন। এছাড়া পশু পালনে খামারীদের উদ্ধুব্ধ করতে সরকারী ঋন ব্যবস্থাও আগের চেয়ে সহজ করা হবে।

এদিকে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আরএফএল গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান খান চৌধুরী বলেন, স্বাস্থ্যবান জাতি গঠনে দরকার পুষ্টি। পুষ্টির ভিত্তি হলো দুধ। আর দুধের উৎপাদনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে খামারিরা। আজ তাদেরকে সম্মানিত করে আমরা নিজেরাই সম্মানিতবোধ করছি।

তিনি আরও বলেন, ডেইরী হাবের ধারণাটি প্রাণ-ই দেশে প্রথম প্রতিষ্ঠা করেছে। প্রাণ এর ডেইরী হাব স্থাপনের মূল উদ্দেশ্য ছিল সরাসরি খামারিদের কাছ থেকে দুধ সংগ্রহ করা যাতে তারা নায্য দাম পায় এবং দুগ্ধশিল্পে দেশকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করা। প্রাণ খামারিদেরকে প্রশিক্ষণসহ নানান সহায়তা দিয়ে গাভি পালনের জন্য উৎসাহ প্রদান করে যা দেশে দুধের উৎপাদন বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের চেয়ারম্যান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান খান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, শাহজাদপুরের উপজেলা চেয়ারম্যান প্রফেসর আজাদ রহমান, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেত তফাজ্জল হোসেন, শাহজাদপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মো. শামসুজ্জোহা, শাহজাদপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুর রাজ্জাক, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের রাজশাহী বিভাগের উপপরিচালক ডা: আবু সৈয়দ মো. নাসির উদ্দিন খান, সিরাজগঞ্জ জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আখতারুজ্জামান ভূঁইয়া ও প্রাণ ডেইরি’র নির্বাহী পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান।

উল্লেখ্য, পাবনার চাটমোহর, নাটোরের গুরুদাসপুর, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর ও বাঘাবাড়ি ও রংপুরে প্রাণ এর ডেইরির মোট পাঁচটি হাব রয়েছে। এসব হাবের অধীন ১০১টি দুগ্ধ সংগ্রহ ও শীতলীকরণ কেন্দ্র রয়েছে। দুগ্ধ সংগ্রহ ও শীতলীকরণ কেন্দ্রে খামারিরা সরাসরি দুধ সরবরাহ করে। প্রাণ ডেইরির বর্তমানে ১২ হাজার চুক্তিভিত্তিক চাষী রয়েছে যারা গরু পালন করে। এসকল চাষীর অধীনে ৫০ হাজার গরু রয়েছে। দুগ্ধখামার করে এসব খামারিরা নিজেদের ভাগ্য ফিরিয়ে এনেছেন। #