করোনাভাইরাস : আতঙ্কে চীন সীমান্ত সিলগালা


অনলাইন ডেস্ক : চীনে প্রাদুর্ভাব ঘটা করোনাভাইরাস সংক্রমণ আতঙ্কে রয়েছে পুরো বিশ্ব। প্রায় ১৫টিরও বেশি দেশে প্রাণঘাতী এ ভাইরাস ইতিমধ্যে ছড়িয়ে পড়েছে। ভয়ে ও আতঙ্কে চীনের সঙ্গে থাকা সীমান্ত সিলগালা করে দিয়েছে মঙ্গোলিয়া।

সাময়িক বন্ধ করা হয়েছে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়। স্থগিত করা হয়েছে বিভিন্ন অনুষ্ঠান। স্থলবেষ্টিত এ দেশটি সোমবার এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছে এএফপি।

এদিকে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবে ক্ষতির ঝুঁকিতে পড়েছে এশিয়ার পর্যটন শিল্প। প্রথমবারের মতো ভারতের মুম্বাইয়ে এক চীনা নাগরিকের করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের পদক্ষেপ নির্ধারণে সোমবার জরুরি বৈঠকে বসেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

৩১ ডিসেম্বর চীনের মধ্যাঞ্চলের উহান শহরে প্রথমবারের মতো প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবর আসে। এরপর জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, থাইল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র, সিঙ্গাপুর, ভিয়েতনাম, তাইওয়ান, নেপাল, ফ্রান্স, সৌদি আরব, কানাডাসহ অন্তত ১৫টি দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সন্ধান মিলেছে। ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু বেড়ে দাঁড়িয়েছে অন্তত ১০৬ জনে।

সরকারি তথ্যানুসারে, এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৪ হাজার ছাড়িয়েছে। তবে এ সংখ্যা ৯০ হাজারেরও বেশি বলে দাবি করেছেন চীনা এক নার্স। নিউমোনিয়া ধাঁচের এ ভাইরাসে এখনও পর্যন্ত কোনো মঙ্গোলীয় নাগরিক আক্রান্ত হননি। কিন্তু চীন থেকেই যেহেতু এ ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব, সেহেতু দেশটির সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে চাইছে তারা।

রোববার মঙ্গোলিয়ার ভাইস প্রধানমন্ত্রী এনকতুবশিন উলজিসাইখান বলেন, ‘মঙ্গোলিয়ার প্রতিবেশী চীনের শহর থেকে এ ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঘটেছে। এজন্য আমরা সীমান্ত বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘চীনা সীমান্ত অতিক্রম করতে পথচারী ও গাড়ির ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। আগামী ২ মার্চ পর্যন্ত স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।’

উলজিসাইখান বলেন, ‘পাবলিক ইভেন্টের ওপরও নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। পাবলিক ইভেন্ট মানে সভা-সেমিনার, কোনো ধরনের গণজমায়েত যেমন- খেলাধুলা, বিনোদন, ভ্রমণ বা প্রতিযোগিতা।’ #