বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে মামুনুর রশিদের ‘রাস্ট্র বনাম’ ৯০তম নাটকটি মঞ্চায়ন


সোহেল সানী, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ
গ্রামীণ জীবনের চালচিত্র ও আইনী জটিলতাকে উপজীব্য করে মামুনুর রশিদের নাটক ‘রাস্ট্র বনাম’ মঞ্চস্থ হলো বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় ৯০তম প্রদর্শন। দর্শকের উপস্থিতি গত শুক্রবার ২৮ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যে ৭টায় জাতীয় নাট্যশালা মঞ্চে প্রাণবন্ত অভিনয় করেন কুশলবরা। দিনাজপুরের পার্বতীপুর ইয়ংস্টার থিয়েটারের পরিবেশনায় ‘রাস্ট্র বনাম’ নাটকটি নির্দেশনা দেন নাট্যজন মোঃ আমজাদ হোসেন। ২৯ ফেব্রুয়ারি নাট্যকার, অভিনেতা, নির্দেশক মামুনুর রশীদের ১৮তম জন্মদিন। বয়স ৭২, অথচ ১৮তম জন্মদিন! মামুনুর রশীদের জন্মবার্ষিকীকে ঘিরে নাট্য উৎসবের ‘রাস্ট্র বনাম’ পরিবেশিত হয় নাটকটি। যা দর্শকের হৃদয় জয় করেছে। নীলফামারীর আঞ্চলিক ভাষায় সরমজানি গ্রামের মানুষের দৈনন্দিন জীবন প্রবাহ, একটি খুনের ঘটনা, আইন আদালত এসব নিখুত দৃশ্য ছিল নাটকটির জমিন জুড়ে। দর্শকদের অভিমতে এ নাটক শ্রেষ্ট নাটক। এতে অভিনয় করেন, কাজল চন্দ্র দাস, স্বদেশ কুমার, মনোয়ার হোসেন, অখিল চন্দ্র রায়, সাহিদা বেগম, মো. রফিক, আরশেদ আলি, মদন মহন প্রসাদ, জাকির হোসেন, ম.আ করিম, মোশাররফ হোসেন, মোরর্শেদ বাবু, বাপ্পি, আল আমিন, স্বপন আমান, আজাদ, মাসুদ রানা, নাজমা, আসাদুজ্জামান, সাগর খন্দকার, শাহনাজ পারভীন, আকিবুল ইসলাম প্রমুখ।

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে ২৭ ফেব্রুয়ারী থেকে ৩ মার্চ পর্যন্ত ছয় দিনব্যাপী ‘দ্রোহ দাহ স্বপ্নের নাট্য আয়োজন’ শুরু হয়। উৎসবে থাকে মামুনুর রশীদ রচিত পাঁচটি নাটকের মঞ্চায়ন, সংগীত, নৃত্য, সেমিনার, প্রদর্শনী, গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন, সংবর্ধনা ও থিয়েটার আড্ডা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে স্বাগত বক্তব্য দেন অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ও ভারতের থিয়েটার ও চলচ্চিত্র সমালোচক শমীক বন্দ্যোপাধ্যায়। নৃত্য পরিবেশন করবেন সাদিয়া ইসলাম মৌ ও তাঁর দল। এরপর জাতীয় নৃত্যশালা মিলনায়তনে অতিথিরা প্রদীপ জ্বালান। সংগীত পরিবেশন করেন বুলবুল ইসলাম, অণিমা রায় ও শারমীন সাথী ইসলাম। সরোদ বাজান ওস্তাদ শাহাদাত হোসেন খান।

২৮ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে ১০টায় স্টুডিও থিয়েটারে বাংলাদেশ অভিনয় শিল্পী সংঘের সম্মিলনী ও শুভেচ্ছা নিবেদন করেন। বিকেল সাড়ে ৪টায় সেমিনার হলে ‘মামুনুর রশীদের নাট্য ভাবনা এবং আমাদের নাট্যচর্চা’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। মুখ্য আলোচক ছিলেন সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম। আলোচক ছিলেন বিশ্বজিৎ ঘোষ ও মলয় ভৌমিক। ২৯ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা ৬টায় জাতীয় নাট্যশালায় মামুনুর রশীদকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জ্ঞাপন। ‘অভিনন্দন জীবন ও শিল্পের মামুনুর রশীদ’ শীর্ষক শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, রামেন্দু মজুমদার, নাসির উদ্দীন ইউসুফ ও লিয়াকত আলী লাকী। সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় নাট্যশালায় মামুনুর রশীদের রচনা ও নির্দেশনায় আরণ্যক নাট্যদলের নতুন প্রযোজনা ফেসবুক– এর উদ্বোধনী প্রদর্শনী হয়। ৩ মার্চ জাতীয় নাট্যশালায় মামুনুর রশীদের রচনা ও নির্দেশনায় সঙক্রান্তি নাটকের প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে উৎসবের সমাপনী ঘটে।