ডিমলায় বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেল ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী সনি


ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জয়শ্রী রানী রায় এর তৎপরতায় এবং দ্রুত ঘটনাস্থল পৌছে ব্যবস্থা নেয়ায় বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেল সনি আক্তার (১২) নামের এক স্কুল পড়–য়া ছাত্রী। সে খগাখড়িবাড়ি শিশু কানন কিল্ডার গার্ডেন স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে অধ্যায়নরত মেধাবী ছাত্রী। জানা যায়, গতকাল শুক্রবার রাতে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার গয়াবাড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম খড়িবাড়ী চুকানটারী গ্রামের রাকিবুল ইসলাম আকুর কন্যা সনি’র পাটগ্রামের দুলু মিয়ার সাথে বিয়ের প্রস্তুতি চলছিলো। এমন খবর পেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার, পেশকার রোকনুজ্জামান রোকন, ডিমলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মফিজ উদ্দিন শেখ, ওসি (তদন্ত) সোহেল রানা, এসআই মাসুদ রানা ও তার সঙ্গীয় ফোর্স সাথে নিয়ে অভিযান চালালে বিয়ের কার্যক্রম ভেস্তে যায়। এ সময় নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও পুলিশ প্রশাসনের উপস্থিতি টের পেয়ে বিয়ে বাড়ির লোকজন পালিয়ে গেলেও আলামত হিসেবে রান্না-বান্না করার হাড়ী-পাতিল, পান-সুপারী ও বিয়ের ডালা পাওয়া যায়। বাল্যবিয়ের প্রস্তুতি নেয়ায় নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ইউএনও জয়শ্রী রানী রায় বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন-২০১৭ এর ৮ ধারায় শিশু কন্যাকে বিয়ে দেয়ার অপরাধে কনের মাতা বিউটি বেগমকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেন এবং প্রাপ্ত বয়স না হওয়া পর্যন্ত মেয়ের বিয়ে না দেয়ার অঙ্গীকার নামা লিখে নেন ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইউএনও ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট জয়শ্রী রানী রায় জানান, নাবালিকা (অপ্রাপ্ত বয়স) কন্যা শিশুর বিয়ের প্রক্রিয়া চলছে এমন খবর পেয়ে অভিযানে রেব হই আমরা এর ফলে মেয়েটি রক্ষা পেল মারাত্মক একটি ঝুঁকি থেকে। বাল্য বিবাহের ওই বাড়িতেই উপস্থিত সকলের সামনে ইউএনও বলেন, বাল্য বিবাহের অপরাধে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না আমি যোগদানের পর থেকে বাল্যবিয়ের খবর পাওয়া মাত্র তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থলে হাজির হয়ে এখন পর্যন্ত বেশকিছু বিয়ে বন্ধ করেছি। বাল্যবিয়ে বন্ধের ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন তৎপর রয়েছে। তিনি আরো বলেন, কোনো ভাবেই যেন শিশু কন্যা/পুত্র বাল্যবিয়ের শিকার না হন সেটি নিশ্চিত করতে চাই। এছাড়া উপস্থিত লোকজনের সামনে নির্বাহী অফিসার বলেন, দেশে বর্তমান নভেল করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের সার্থে জনসমাবেশ সহ বিভিন্ন ধরনের অনুষ্ঠান বড় করে করা যাবে না। আসুন করোনা ভাইরাসে আতঙ্কে না হয়ে, নিজ জায়গা থেকে সতর্ক হয়ে করোনা ভাইরাসকে করি বিদায়।