রাজাপুরে জুয়ারী ছেলের হামলায় পিতার মৃত্যু! ঘাতক ছেলে আটক


সাইদুল ইসলাম, রাজাপুর:
ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার কাঠিপাড়া এলাকায় কলেজ পড়–য়া মাদকসেবী ও জুয়ারী ছেলের লাঠির আঘাতে ইসমাইল হোসেন আকন (৫২) নামে এক পিতার মৃত্যু হয়েছে।

এ ঘটনায় ইসমাইল আকনের স্ত্রী রোকয়া বেগমও (৪৫) গুরুতর আহত হয়ে বরিশাল শেবাচিমে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

অভিযুক্ত জুয়ারী ছেলে মাহফুজকে আটক করেছে রাজাপুর থানা পুলিশ।

রবিবার (১১মে) গভীর রাতে বরিশাল শেবাচিমে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইসমাঈল আকনের মৃত্যু হয়। ইসমাঈল আকন উপজেলার কাঠিপাড়া এলাকার মৃত. আব্দুল হামিদ আকনের ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, সম্প্রতি সময়ে উপজেলার উত্তর তারাবুনিয়া এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতে ৪ জুয়াড়িকে ১ মাস করে বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়। এ ঘটনা জানার পর মাহফুজের বাবা ইসমাইল হোসেন রবিবার রাতে মাহফুজের ঘরে রাখা একটি জুয়ার কোড ও খেলার সরঞ্জাম বাইরে ফেলে দেয়। এতে বাবা-ছেলের মধ্যে বাকবিতন্ডা সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে মাহফুজ ক্ষিপ্ত হয়ে লাঠি দিয়ে তার বাবার মাথায় আঘাত করে। এ সময় রোকয়া বেগম দৌড়ে এসে ছেলেকে বাধা দিলে মাহফুজ লাঠি দিয়ে তার মায়ের মাথায়ও আঘাত করে।

প্রতিবেশীরা ইসমাইল আকন ও রোকেয়া বেগমকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে রাজাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক দিয়ে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাদের বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। রবিবার গভীর রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইসমাইল হোসেনের মৃত্যু হয়।

স্থানীয়রা আরও জানান, মাহফুজ পাশ্ববর্তী কাউখালী উপজেলার কাঠালিয়া টেকনিক্যাল কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র বটে কিন্তু সে এলাকায় চিহ্নিত জুয়াখোর, মাদক মাদকসেবী ও মাদক ব্যবসায়ী। এলাকায় সে জুয়াড়ি মাহফুজ নামে পরিচিত। পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, নিহত ইসমাঈল আকন ঢাকায় একটি গার্মেন্টসে চাকুরি করতেন, তার দুটি সংসার রয়েছে। প্রথম স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে ইসমাঈল আকন ঢাকায় বসবাস করতেন। মাঝে মাঝে তিনি এলাকায় আসতেন। সম্প্রতি তিনি করোনার ছুটিতে বাড়িতে এসেছিলেন।

এ বিষয়ে রাজাপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: জাহিদ হোসেন জানান, ঘাতক মাহফুজকে আটক করা হয়েছে এবং মামলার প্রস্তুতি চলছে। #