বাংলাদেশ রেলওয়ে চালু হলো ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন


রাজশাহী প্রতিনিধি : করোনাভাইরাস ও আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত আমচাষীদের প্রণোদনা হিসেবে প্রথমবারের ১ টাকা ১৭ পয়সা ভাড়ায় রাজশাহী থেকে ঢাকায় ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেনে আম পাঠানো শুরু হয়েছে।
শুক্রবার (৫ই জুন) বিকালে, রাজশাহী থেকে ২৬শ’ কেজি আম নেয়া হয় এই ট্রেনে। এছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে নেয় ৪০ ক্যারেটে আরো এক টন আম ও ১০ ড্রাম ঘি। বিকাল পৌনে ৬টায় রাজশাহী স্টেশনে এই ট্রেনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এসময় উপস্থিত ছিলেন পশ্চিমাঞ্চল রেলের জিএম মিহির কান্তি গুহ, জেলা প্রশাসক হামিদুল হক প্রমূখ।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, এই ট্রেনটি আমাদের খুবই কাঙ্খিত ছিলো। অনেকবারই তাগাদা দেয়ার পর এবার চালু হলো। রাজশাহীর আম ছাড়াও সারাবছরই এই ট্রেনে রাজশাহীর ফ্রেশ সবজি পাঠানো সম্ভব হবে।

রাজশাহী এগ্রো ফুড প্রোডিউসার সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান বলেন, প্রথমদিন প্রচারণার অভাবে আম ও কাঁচামাল কিছুটা কম গেছে। পরে আরো বাড়বে। কুরিয়ার সার্ভিসে যেখানে ১৫ টাকা কেজি নেয়, সেখানে মাত্র ১ টাকা ১৭ পয়সায় মাল যাবে। এটা রাজশাহী অঞ্চলের অর্থনীতির চেহারা বদলে দেবে।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের বিভাগীয় বাণিজ্যিক কর্মকর্তা (পাকশী) ফুয়াদ হোসেন আনন্দ বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে যখন ঢাকা যাবে তখন ট্রেনটির নাম হবে ‘ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন-২’। আর ঢাকা থেকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ফেরার পথে নাম হবে ‘ম্যাংগো স্পেশাল ট্রেন-১’। ট্রেনটি সপ্তাহে প্রতিদিন চলাচল করবে। প্রতিদিন চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে বিকেল ৪টায় ছেড়ে আসবে। রাজশাহী পৌঁছাবে ৫টা ২০ মিনিটে। এখানে ৩০ মিনিট থেমে মালামাল উঠিয়ে ৫টা ৫০ মিনিট মিনিটে ট্রেনটি আবারো যাত্রা শুরু করবে। এরপর বিভিন্ন স্টেশন হয়ে ট্রেনটি ঢাকায় পৌঁছাবে রাত ১টায়। ঢাকা থেকে ট্রেনটি রাত ২টা ১৫ মিনিটে ছেড়ে আসবে। রাজশাহী পৌঁছাবে সকাল ৮টা ৩৫ মিনিটে। এখানে ২০ মিনিট থেমে ট্রেনটি চাঁপাইনবাবগঞ্জের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। পৌঁছাবে সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে। ট্রেনটিতে মোট ছয়টি ওয়াগন থাকবে। প্রতিটি ওয়াগনে ৪৫ হাজার কেজি আম নেয়া যাবে। তবে শুধু আম নয়, সকল প্রকার শাকসবজি, ফলমূল, ডিমসহ কৃষি পণ্য, বাড়ির ফার্নিচার এবং রেলওয়ের আইনে পার্সেল হিসেবে বহনযোগ্য সকল সামগ্রী বহন করা হবে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ছেড়ে এসে ট্রেনটি আমনূরা বাইপাস, কাঁকনহাট, রাজশাহী, সরদহ, আড়ানি ও আব্দুলপুর বাইপাস স্টেশনে থামবে। এসব স্থানে আমসহ পার্সেল পণ্য ট্রেনে তোলা হবে। টাঙ্গাইল, মির্জাপুর, কালিয়াকৈর, জয়দেবপুর, টঙ্গী, বিমানবন্দর, ক্যান্টনমেন্ট, তেজগাঁও এবং কমলাপুর স্টেশনে ট্রেনটি থামবে। ফেরার পথে ট্রেনটি তেজগাঁও, টঙ্গী, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, চাটমোহর এবং রাজশাহী স্টেশনে থামবে। তবে যাত্রাপথে কোথাও সাধারণ যাত্রী এ ট্রেনে তোলা হবে না। #