বাল্য বিবাহ অনুষ্ঠানের খাবার জব্দ, পথশিশুদের মাঝে বিতরণ : কনের বাবার জেল,কাজীর জরিমানা


শেখ আশিকুন্নবী সজীব,ফেনী প্রতিনিধি :
ফেনীতে বাল্য বিবাহের দায়ে কনের বাবার ১৫ দিনের জেল ও কাজীর ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাছলিমা শিরিন।

শুক্রবার (২৬ জুন) দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ফেনীর রামপুর হাফেজ উকিল বাড়ি এলাকার ভাড়াটিয়া মো: জহির উদ্দিনের বাড়িতে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমান আদালত।

সে সময় সেখানে সপ্তম শ্রেণীর এক ছাত্রীর (১৩) সাথে বিয়ের আয়োজন চলছিল ২৫ বছর বয়সী একটি কারখানার শ্রমিক আনোয়ারের সাথে। তারা উভয়ই লক্ষ্মীপুর জেলার বাসিন্দা।

শুক্রবার কাউকে না জানিয়ে কনের পিতা মো: জহির উদ্দিন তার তেরো বছর বয়সী মেয়েকে আলী আহম্মদের ছেলে মো. আনোয়ারের সাথে বিবাহ দিচ্ছিলেন। খবর পেয়ে ভ্রাম্যমান আদালতের একটি টিম কনের বাড়িতে হানা দেয়। এসময় অপ্রাপ্ত বয়স্ক মেয়ে বিবাহ দেয়ার দায়ে ফেনী পৌরসভার ১৮নং ওয়ার্ডের কাজী নিকাহ রেজিষ্ট্রার আবদুল মতিনকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত। একই সময় মেয়ের পিতা মো. জহির উদ্দিনকে এ বিয়ের আয়োজনের জন্য ১৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়। অপর দিকে ভ্রাম্যমান আদালতের খবর পেয়ে পাত্র আনোয়ার বাসা ছেড়ে পালিয়ে যায়।

ফেনী জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তাছলিমা শিরিন বাল্য বিবাহের দায়ে ভ্রাম্যমান আদালতে কনের পিতার কারাদন্ড ও কাজীর অর্থদন্ডের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান,মেয়েটি পড়াশোনা করতে চায়।সে বড় হয়ে পুলিশ অফিসার হতে ইচ্ছুক।তার পড়াশোনার সমস্ত দায়িত্ব স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর আমির হোসেন বাহার নিয়েছেন এবং স্কুল কর্তৃপক্ষ মেয়েটির পড়াশোনার ব্যাপারে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

তিনি আরো জানান,বিয়ের অনুষ্ঠান আয়োজনের সমস্ত খাবার জব্দ করে সামাজিক সংগঠন সহায় এর মাধ্যমে ফেনী রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় গিয়ে পথশিশু ও ছিন্নমূল মানুষের মাঝে বিতরণ করা হয়।

অভিযানে ভ্রাম্যমান আদালতের বেঞ্চ সহকারি ছিলেন নুর উদ্দিন আরিফ।

ফেনী পৌরসভার ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ সাইফুর রহমান, ১৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আমির হোসেন বাহার ও আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যগন উপস্থিত ছিলেন।