পার্বতীপুরে করোনা সন্দেহে লাশ দাফনে এগিয়ে আসে ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ


স্টাফ রিপোর্টার : পার্বতীপুরে উপজেলায় হালিমা বেগম (৫৫) করোনা সন্দেহে বুধবার ভোর পৌনে ৬টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দিনাজপুরে তার মৃত্যু হয়।

পার্বতীপুর পৌরসভার পাওয়ার হাউজ কলোনির হালিমা বেগমের (৫৫) দাফন কাফনে এগিয়ে আসে ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ এর পার্বতীপুর উপজেলার যুব আন্দোলনের স্বেচ্ছাসেবী টিম।

পারিবারিক সূত্র জানাযায়, গত ২৭ জুন দিনাজপুর ভর্তি হয়েছিল । তার বাড়ী পার্বতীপুর রেলওয়ে পাওয়ার হাউজ কলোনীর সিংগেল কোয়াটারে। দুপুরে মরহুমার করোনা সন্দেহে সরকারী নিয়ম অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ পার্বতীপুর রেলওয়ের পাওয়ার হাউজ কলোনীর কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়। মরহুমার স্বামীর নাম আবদুস সাত্তার। তিনি কেলোকায় কর্মরত আছেন। এলাকাবাসী বলছে মরহুমার স্বামী ও ছেলে হান্নানের শরীরের তাপমাত্রা বেশী বলে কর্মস্থলে প্রবেশ করতে দেয়নি কেলোকা কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে পিতা পুত্রের শরীরের তাপের বিষয়টি কতটুকু সত্য তা দ্রুত যাচাই করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার জন্য উপজেলা প্রশাসনের দৃস্টি কামনা করছেন মহল্লাবাসী। মরহুমার করোনা টেস্টের রিপোর্ট এখনো আসেনি বলে পার্বতীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা জানান।

পার্বতীপুর উপজেলার যুব আন্দোলনের স্বেচ্ছাসেবী টিমের নেতৃত্ব প্রদান করেন টিম প্রধান মোঃ শামিম হোসেন সভাপতি ইসলামি যুব আন্দোলন, দিনাজপুর দক্ষিণ জেলা শাখা।
স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে আরাও উপস্তিত ছিলেন :-
১. মোঃ বেলাল চৌধুরী। (আঃ বিঃ সম্পাদক দিনাজপুর দক্ষিণ জেল শাখা )
২. মোঃ আব্দুল্লাহ আল মামুন (বিঃপ্রঃ সম্পাদক দিনাজপুর দক্ষিণ জেলা শাখা)
৩. মোঃ জিলকাদুল ইসলাম সোহাগ (সভাপতি ইঃযুঃআঃ পার্বতীপুর উপজেলা শাখা।
৪. হাঃ মোঃ তাশরিফ শামিম। (দঃ সম্পাদক যুঃআঃ পার্বতীপুর উপজেলা শাখা)
৫. ডাঃ মোঃ শাহ আলম। (আঃবিঃ সম্পাদক যুঃআঃ পার্বতীপুর উপজেলা শাখা)
৬. মোঃ রবিউল ইসলাম মিলন (সাঃসম্পাঃ বাংঃ মুজাঃ কমিটি পার্বতীর উপজেলা শাখা)
৭. মোঃ মিজানুর রহমান। (বিশিষ্ট সমাজ সেবক পার্বতীপুর)