গাইবান্ধায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি ১ লাখ ৩০ হাজার মানুষ বন্যা কবলিত : ৩ হাজার ৮৬ হেক্টর ফসল নিমজ্জিত


গাইবান্ধা প্রতিনিধি :
গাইবান্ধায় ব্রহ্মপুত্র ও ঘাঘট নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় জেলার সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। জেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে, সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি, সাঘাটা ও সদর উপজেলার ২৬টি ইউনিয়নের ১ লাখ ৩০ হাজার মানুষ এখন বন্যা কবলিত। কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, চারটি উপজেলায় এ পর্যন্ত ৩ হাজার ৮৬ হেক্টর জমির পাট, আমন বীজতলা, আউশ ধান ও শাকসবজিসহ অন্যান্য ফসল বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে।

এদিকে পানিবন্দী পরিবারগুলো চরম দুর্ভোগের মধ্যে পড়েছে। ফলে ওইসব মানুষের মধ্যে শুকনো খাবার ও জ্বালানির অভাবে খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকার অনেকে ইতোমধ্যে বাড়িঘর ছেড়ে গরু-ছাগল নিয়ে বন্যা নিয়ন্ত্রন বাঁধ ও উঁচু এলাকায় আশ্রয় নিয়েছে। এদিকে বাঁধে ও উঁচু স্থানে আশ্রিত গবাদি পশুরও খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। বন্যার পানি বৃদ্ধির ফলে রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্রে জানা গেছে, ব্রহ্মপুত্রের পানি বিপদসীমার ১১৮ সে.মি. এবং ঘাঘট নদীর পানি বিপদসীমার ৯৩ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।

এদিকে বন্যা দুর্গত এলাকার মানুষদের জন্য ২১০ মে. টন চাল, ৩ হাজার ৬০০ প্যাকেট শুকনো খাবার, খয়রাতি সাহায্য হিসেবে সাড়ে ১৪ লাখ টাকা ও শিশু খাদ্যের জন্য ২ লাখ টাকা সরকারি ত্রাণ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। #

রংপুর চিনিকলের শ্রমিক-কর্মচারী ও আখচাষীদের বিক্ষোভ মিছিল : প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : চার মাসের বকেয়া বেতন ও আখের মূল্য পরিশোধের দাবীতে বৃহস্পতিবার গাইবান্ধার একমাত্র ভারি শিল্প কারখানা মহিমাগঞ্জের রংপুর চিনিকলের শ্রমিক-কর্মচারী ও আখচাষীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল চিনিকল এলাকাসহ স্থানীয় প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। মিছিল শেষে চিনিকলের প্রধান ফটক প্রাঙ্গণে একটি পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। পথসভায় বক্তব্য রাখেন রংপুর চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি আবু সুফিয়ান সুজা, সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান দুলাল, সহ-সম্পাদক ফারুক হোসেন ফটু, কোষাধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম প্রমূখ। বক্তারা আসন্ন ঈদ-উল আজহার আগেই শ্রমিক-কর্মচারী ও আখচাষীদের সকল পাওনা পরিশোধের দাবী জানান।

বুধবার বিকেলে রংপুর চিনিকল শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ বকেয়া বেতন পরিশোধের পাশাপাশি চিনিকলের বাণিজ্যিক খামার ভুমিদস্যূ মুক্তকরণের দাবী জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন।