রাজাপুরে বিদ্যালয়ের অনিয়ম ও দুর্নীতি তদন্তে দুদক


রাজাপুর (ঝালকাঠি) প্রতিনিধি : ঝালকাঠির রাজাপুর মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ভূ-সম্পত্তি বেআইনিভাবে ইজারার নামে বাণিজ্যসহ নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির তদন্তে মাঠে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সহ পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে ওঠা এসব অনিয়ম তদন্তে এরই মধ্যে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে আগামী ৭ সেপ্টেম্বর সোমবার প্রয়োজনীয় নথিপত্রসহ তদন্তকালে তদন্ত কর্মকর্তা রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ে উপস্থিত থাকতে বলা হয়েছে।

সূত্র জানায়, রাজাপুর মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ভূ-সম্পত্তি বিভিন্ন সময় বেআইনিভাবে ইজারা দিয়ে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সাথে আঁতাত করে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে প্রভাবশালী একটি মহল। এছাড়াও শিক্ষক, কর্মচারী নিয়োগে বাণিজ্যসহ পরিচালনা কমিটির সভায় যেসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সেখানেও নানা গরমিল রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এই সকল অনিয়মের প্রতিবাদে গত তিন মাস ধরে বেহাত হওয়া ভূ-সম্পত্তি উদ্ধারের জন্য ধারাবাহিক ভাবে আন্দোলন করে যাচ্ছেন প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা। ইতিমধ্যে বিদ্যালয়ের সম্পত্তি উদ্ধার ও অবৈধ ইজারা বাতিলের জন্য অবস্থান কর্মসূচি, মানববন্ধন, গণস্বাক্ষর কর্মসূচিসহ নানা কর্মসূচি পালন করেছে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। বিদ্যালয়ের ভূ-সম্পত্তি উদ্ধারে আন্দোলনকারীদের ধারাবাহিক কর্মসূচি নিয়ে সম্প্রতি বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবেরের সূত্র ধরে অভিযোগের বিষয়গুলো নিয়ে তদন্তে নেমেছে দুদক।

দুর্নীতি দমন কমিশন প্রধান কার্যালয়ের পরিচালক মোঃ জহিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত জেলা প্রশাসকের নিকট প্রেরিত চিঠিতে বিদ্যালয়ের সম্পত্তি বেআইনিভাবে ইজারার নামে বেহাত করে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার বিষটি তদন্ত পূর্বক তদন্ত প্রতিবেদন চেয়ে পাঠিয়েছেন কমিশন। জেলা প্রশাসক ইতিমধ্যেই রাজাপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সোহাগ হাওলাদারকে তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করেছেন।

এ ব্যাপারে তদন্ত কর্মকর্তা ইউএনও মোঃ সোহাগ হাওলাদার বলেন আগামী ৭ সেপ্টেম্বর তদন্তের কাজ শুরু করা হবে। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই সংশ্লিষ্ট সকলকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। অনুসন্ধান বা তদন্ত শেষ করে জেলা প্রশাষকের মাধ্যমে একটি তদন্ত প্রতিবেদন কমিশনে পাঠানো হবে। #