পাহাড়ে রেড লেডি’র বাম্পার ফলন


অনলাইন ডেস্ক : উপরে সবুজ। ভিতরটা লাল। খেতেও মিষ্টি আর সুস্বাদু। নাম পেঁপে হলেও পরিচিতি লাভ করেছে রেড লেডি হিসেবে। এরই মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিতা লাভ করেছে এ রেড লেডি। তাই পাহাড়ের প্রান্তিক চাষিদেরও আগ্রহ বেড়েছে এ রেড লেডি পেঁপে চাষে। দাম কম। চাহিদা বেশি। তাই পাহাড়ে উৎপাদিত এ রেড লেডি পেঁপে ব্যাণিজ্যিকভাবে রপ্তানি হচ্ছে চট্টগ্রাম-ঢাকাসহ পাশ-পাশের বিভিন্ন জেলায়। এতে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হচ্ছে স্থানীয় কৃষকরা।

রাঙামাটি কৃষি বিভাগ বলছে, পার্বত্যাঞ্চলে রেড লেডি হাইব্রিড পেঁপে ব্যাপকভাবে চাষাবাদ হচ্ছে। ফলন বাম্পার হওয়ায় আগ্রহ বেড়েছে চাষীদের। সাধারণত ৫-৬ মাসের মধ্য ফুল আসে এ পেঁপে গাছে। প্রথম ফল পাওয়া যায় ৭-৯ মাসের মধ্যে। এ পেঁপে উপরে সবুজ আর ভিতরে লাল। আবার পাকলে উপরে হলুদ রঙও ধারণ করে। রেড লেডি জাতের প্রতিটি পেঁপে গাছ থেকে প্রায় ৫০ থেকে ১২০টি পর্যন্ত ফল পাওয়া যায়। পাহাড়ি মাটি ও আবহাওয়া রেড লেডি পেঁপে চাষের জন্য উপযোগী। তাই কৃষকরাও সন্তষ্ট রেড লেডি চাষ করে। লাভবান হয়েছে অনেক চাষীও।

এব্যাপারে কথা হয় রাঙামাটি কাউখালী উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের চম্পা তলীর বাসিন্দা রিপা চাকমার সাথে। তিনি বলেন, পাহাড়ে জুম চাষের পাশাপাশি রেড লেডি চাষ করেছিলাম। তেমন পরিচর্যাও করা লাগেনি। প্রকৃতি গতভাবে বেড়ে উঠেছে এ রেড লেডি গাছ। দ্রুত ফলনও পাওয়া গেছে। এক একটি গাছে ৭০ থেকে ৮০টা পেঁপে পাওয়া গেছে। বাজারে চাহিদা আছে। রেডি লেডি পেঁপে বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৭৫ থেকে ৮০টাকা পর্যন্ত। তাই লাভ অনেক বেশি।
একই ভাবে লাভবান হয়েছে আরেক রেড লেডি চাষী মো. মমিনুল হক। তিনি রাঙামাটি লংগদু উপজেলার বগাচত্বর ইউনিয়নের বৈরাগীবাজার এলাকার বাসিন্দা। সখের বসে এক একর বাগান চাষ করেছেন রেড লেডি। এরই মধ্যে তার বাগানে ৯০০ গাছে এসেছে বাম্পার ফলন। উৎপাদন হয়েছে ২৮-২৯ মেট্রিক টন। এরই মধ্যে স্থানীয় বাজারে সয়ালাভ হয়েছে এ রেড লেডি।

রাঙামাটি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর উপ পরিচালক পবন কুমার চাকমা জানান, রাঙামাটি জেলায় এবার এক হাজার ৬৭৮ হেক্টর জমিতে রেড লেডি পেঁপে চাষ হয়েছে। আবাদও হচ্ছে ব্যাপক। কৃষকদের মাঠ পর্যায়ে সহযোগিতা করছে কৃষি কর্মকর্তা। রেড লেডি রেড লেডি ২ গ্রাম বীজের প্রতি প্যাকেট ৫৫০-৬৫০ টাকায় কিনতে পাওয়া যায়। বীজ থেকে বংশ বিস্তার করা খুব সহজ। বীজের প্যাকেট কেটে ২ ঘণ্টা রোদে শুকানোর পর ঠাণ্ডা জায়গায় রেখে ঠাণ্ডা করে ১০ থেকে ১২ ঘণ্টা পানিতে ভেজানোর পর পলিথিন ব্যাগে চারা তৈরি করতে হবে। পলিথিন ব্যাগে চারা তৈরি করলে রোপনের পর চারা দ্রুত বৃদ্ধি পায়। ৫ থেকে ৬ সেমি আকারের ব্যাগে সম পরিমাণ বেলে দোআঁশ মাটি ও পঁচা গোবরের মিশ্রণ ভর্তি করে, ব্যাগের তলায় ২-৩ টি ছিদ্র করতে হবে। তারপর এতে সদ্য সংগৃহীত বীজ হলে একটি এবং পুরাতন বীজ হলে ২টি বীজ বপন করতে হবে। ১টি ব্যাগে এক এর অধিক চারা রাখতে হবে। #