ফুলবাড়ী পৌর নির্বাচনে আওয়ামীলীগ-বিএনপির ভরাডুবি : স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী


ফুলবাড়ী (দিনাজপ্রু) প্রতিনিধি :
দিনাজপুরের ফুলবাড়ী পৌরসভা নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দীতা করে মাহমুদ আলম লিটন নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে ৭ হাজার ৭৫০ ভোট পেয়ে বেসরকারী ভাবে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান মেয়র মুরতুজা সরকার মানিক জগ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৭ হাজার ৪০ ভোট। প্রথমবারের মতো ইভিএমের মাধ্যমে পৌর এলাকার ১০টি কেন্দ্রের ৯৪টি বুথে শান্তিপূর্ণভাবে ফুলবাড়ী পৌরসভা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বেসরকারি ভাবে ঘোষিত ফলাফল অনুয়ায়ী ৭ হাজার ৭ শত ৫০ ভোট পেয়ে (নারিকেল গাছ) বেসরকারী ভাবে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহমুদ আলম লিটন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী বর্তমান মেয়র স্বতন্ত্র প্রার্থী মুরতুজা সরকার মানিক (জগ) ভোট পেয়েছেন ৭ হাজার ৪০ ভোট। অপরদিকে আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী খাজা মইন উদ্দীন (নৌকা ) পেয়েছেন ৩ হাজার ৪ শত ৬০ ভোট,বিএনপি মনোনিত প্রার্থী সাহাদৎ আলী ( ধানের শীষ) পেয়েছেন ৩ হাজার ৪২ ভোট।

সোমবার রাত ৮টার দিকে ফুলবাড়ী উপজেলার পরিষদের হলরুমে আনুষ্ঠানিক ভাবে ফুলবাড়ী পৌরসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশ করেন জেলা সিনিয়র নির্বাচন অফিসার ও রিটানিং কর্মকর্তা শাহীনুর ইসলাম প্রারামানিক ।

নির্বাচনে ২৭ হাজার ৯ শত ৩১ ভোটারের মধ্যে, ২১ হাজার ২ শত ৮৯ ভোটার অংশ গ্রহন করেছেন। যা ৭৬ দশমিক ১ শতাংশ। ৫১ টি অপ্রদত্ত ভোট।

সোমবার সকাল ৮টা থেকে ইভিএম এর মাধ্যমে ভোট গ্রহন শুরু হয়ে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহন চলে। করোনা ও শীত উপেক্ষা করে ভোটাররা ভোট কেন্দ্রে আসতে শুরু করে। শুরুতে ভোটার উপস্থিতি কম হলেও বেলা বাড়ার সাথে সাথে ভোটারের উপস্থিতি বাড়তে থাকে।

প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে স্বাস্থ্যবিধি মেনে নারী ও পুরুষ ভোটাররা তাদের পছন্দনীয় প্রার্থীদের ভোট প্রদান করেছেন। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা থাকার কারণে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। ভোট কেন্দ্রো গুলোতে পুলিশ আনসারের পাশাপাশি বিজিবি ও র‌্যাবের সদস্যদের টহল করতে দেখা গেছে। এ ছাড়াও প্রতিটি কেন্দ্রে একজন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট স্ট্রাইকিং ফোর্সের প্রধান হিসেবে দ্বায়িত্ব পালন করেছেন ।

নির্বাচন অফিসার ওয়াজেদ আলী জানান,ফুলবাড়ী পৌরসভায় মেয়র পদে ৪ জন প্রার্থী প্রতিন্দন্দ্বিতা করেছেন। সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর তিনটি পদের বিপরীতে ১০ জন নারী কাউন্সিলর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন এবং সাধারণ ৯টি ওয়ার্ডে ৯ জন কাউন্সিলর পদের বিপরীতে ২৯ জন কাউন্সিলর প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। পৌরসভায় ২৭ হাজার ৯৩১ জন ভোটার রয়েছেন এর মধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছে ১৩হাজার ৫শত ৫২ জন ও নারী ভোটার রয়েছে ১৪ হাজার ৩শত ৭৯ জন।