মজজিদ, ঈদগাহ ও খোলা জায়গায় এবার ঈদের জামাত


নিজস্ব প্রতিনিধি : স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে ঈদুল আযহার জামাত মসজিদ, ঈদগাহ বা খোলা জায়গায় আয়োজনের করা যাবে বলে জানিয়েছে ধর্ম মন্ত্রনালয়।

মন্ত্রনালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ কুদ্দুছ আলী সরকারের সই করা এক জরুরি বিজ্ঞপ্তিতে একথা জানানো হয়।

এতে বলা হয়েছে, স্থানীয় করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সঙ্গে প্রশাসনের বৈঠকের জামাত আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

আর ঈদের জামাতের সময় সব ধরনের স্বাস্থ্যবিধি মানকে হবে। এনিয়ে কিছু নির্দেশনাও দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রনালয়।

মসজিদে ঈদের নামাজ আয়োজন করা হলে সেখানে কার্পেট বিছানো যাবে না। নামাজের পূর্বে গোটা মসজিদ জীবানুনাশক দ্বারা জীবাণুমুক্ত করতে হবে।

মুসল্লিদের সবাইকে সঙ্গে করে নিজের জায়নামাজ নিয়ে আসতে হবে। সবাইকে বাসা থেকে ওযু করে জামায়াতে যেতে হবে। ওযু করার সময় ২০ সেকেন্ড সাবান-পানি দিয়ে হাত ধুতে হবে।

করোনার সংক্রমণরোধ মসজিদ বা ঈদগাহে ওযুর স্থানে সাবান, পানি ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে। এছাড়া মসজিদ বা ঈদগাহর প্রবেশ পথেও একই ব্যবস্থা রাখতে হবে।

ঈদের নামাজের জামায়াতে মুসল্লিদের অবশ্যই মাস্ক পরে আসতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি কোন মতেই ব্যবহার করা যাবে না।

নামাজ আদায়ের সময় কাতারে দাড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি অবশ্যই অনুসরণ করে দাঁড়াতে হবে এবং এক কাতার অন্তর অন্তর কাতার করতে হবে।

ঈদের জামায়াত শেষে কোলাকুলি এবং পরস্পরের সঙ্গে হাত মেলানো যাবে না। শিশু, বয়োবৃদ্ধ, অসুস্থ ব্যক্তিদের ঈদের নামাজ আদায়ে মসজিদ বা ঈদগাহে না যেতে অনুরোধ করা হয়েছে।

এসব নির্দেশনা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে কিনা, তা নিশ্চিত করতে খতিব, ইমাম, মসজিদ ও ঈদগাহ পরিচালনা কমিটি এবং স্থানীয় প্রশাসনকেও বলা হয়েছে।